অবশেষে নারী সাংবাদিক শ্লীলতাহানী মামলার আসামী রামিম গ্রেফতার

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

ডেইলি পাবনা ডটকম

মামলার ৩ মাস পর অবশেষে শৈলকুপায় নারী সাংবাদিকের দায়েরকৃত শ্লীলতাহানী মামলার আসামী রামিম হাসানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার দুপুরে পৌর এলাকার সাতগাছি গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় মামলার অপর আসামী আব্দুর রহমান মিল্টন পালিয়ে যান।
শৈলকুপা থানার পুলিশ জানায়, গত ৫ নভেম্বর দৈনিক শ্যামবাজার পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার তানিয়া আফরোজ বাদী হয়ে শ্লীলতাহানীর অভিযোগে শৈলকুপা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২০০০ (সংশোধনী/০৩) ১০ ধারাসহ ৩২৩ ও ৫০৬ পেনালকোডে মামলা করেন। সেই থেকে মনোহরপুর গ্রামের সাংবাদিক আব্দুর রহমান মিল্টন ও তার সহযোগি সাতগাছি গ্রামের রামিম হাসান পলাতক ছিলেন। কবিরপুরে একটি প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্ট্রিকের ভিতর মারধর ও নির্যাতনের ঘটনায় জড়িত আসামীদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছিল। তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন ও মানববন্ধন করেন নির্যাতিত সাংবাদিক তানিয়া আফরোজ।
ওই সংবাদ সম্মেলনে নির্যাতিতা সাংবাদিক তানিয়া আফরোজ বলেন, ডিবিসি চ্যানেলের ঝিনাইদহ প্রতিনিধি নারী নির্যাতন মামলার প্রধান আসামী লম্পট ও মাদকাসক্ত আব্দুর রহমান মিল্টন এবং অপর সহযোগি আসামী রামীম হাসান মামলা তুলে নিতে তাকে হুমকি দিয়ে আসছেন। ৮ ফেব্রুয়ারী শনিবার দুপুরে মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা শৈলকুপা থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক মহসিন হোসেন অভিযান চালিয়ে রামিম হাসানকে গ্রেফতার করার প্রাক্কালে অপর আসামী আব্দুর রহমান মিল্টন পালিয়ে যান।
থানা সূত্র জানায়, অত্র মামলার বাদীকে সামাজিকভাবে হেয়পতিপন্ন ও মানহানিকর বক্তব্য দিয়ে নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করার চেষ্টার অভিযোগে ঝিনাইদহ বিজ্ঞ আদালতে ফৌঃকাঃ বিধির ৪৯৮/৪৩৯/(ক) ৪৩৫ ও ৪০৮ ধারায় আরো একটি মামলা হয়েছে যার নম্বর ১৩৯/১৯।
শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ বজলুর রহমান জানান, নারী সাংবাদিক তানিয়া আফরোজকে মারধর ও শ্লীলতাহানীর অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় রামিম হাসানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পলাতক আব্দুর রহমান মিল্টনকেও গ্রেফতার চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *