ঈদের আগে বকেয়া পরিশোধের দাবিতে পাবনা সুগার মিলে বিক্ষোভ

ঈদের আগে পাওনা টাকা পাচ্ছেন না পাবনা সুগার মিলের শ্রমিক-কর্মচারী ও আখচাষিরা। মিলের প্রায় ৮০০ শ্রমিক-কর্মচারী ও সাড়ে তিন হাজার আখচাষি প্রায় প্রতিদিন মিলচত্বরে এসে ধরনা দিচ্ছেন তাদের বকেয়া টাকার দাবিতে।

রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালকের অফিসে তারা বকেয়া পরিশোধের দাবিতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন।

মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফুদ্দিন জানান, আখচাষিরা ৩ কোটি ৬৭ লাখ টাকা পাবেন। অন্যদিকে মিলের শ্রমিক-কর্মচারীদের চার মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। এর পরিমাণ ৫ কোটি টাকা।

সব মিলিয়ে এখন ঈদের আগে জরুরিভিত্তিতে প্রায় ৯ কোটি টাকা প্রয়োজন। কিন্তু মিলে উৎপাদিত চিনিগুদামে অবিক্রীত পড়ে থাকার কারণে এ বকেয়া পরিশোধ করা যাচ্ছে না।

বর্তমানে ৪ হাজার ২০০ টন চিনি অবিক্রীত পড়ে আছে, যার মিল রেট অনুযায়ী দাম প্রায় ২৫ কোটি ২০ লাখ টাকা।

কেন দেশি চিনি বিক্রি হচ্ছে না, জানতে চাইলে এমডি বলেন, বেসরকারি খাতের চিনি অনেক ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা বাকিতে পায়। অন্য সুবিধাও দেয়। এ কারণে ওই চিনি কিনতে ব্যবসায়ীরা বেশি আগ্রহী।

অন্য একটি সূত্র জানায়, দেশি চিনি গুণে ও মানে ভালো হলেও মিষ্টির দোকানদাররা শুধু সাদা রঙের কারণে আমদানি করা চিনি কিনতে আগ্রহী। এতে মিষ্টির রঙ সাদা হয়। দেশি চিনি একটু লালচে হয়।

বাংলাদেশ চিনিকল আখচাষি ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান আলী বাদশা জানান, আখচাষিদের বকেয়া পরিশোধের ব্যাপারে বিসিআইসির চেয়ারম্যানের সঙ্গে বারবার কথা বলেও সমাধান হচ্ছে না।

তিনিও অবিক্রীত চিনির প্রসঙ্গ তুলছেন। সার্বিক পরিস্থিতিতে ঈদের আগে পাওনাদারদের টাকা পরিশোধের ব্যাপারটি এখনও অনিশ্চিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *