নাটোরের চামড়া বাজারে ধ্বস নামার অশংখা করছে ব্যবসায়ীরা

নাটোর প্রতিনিধি.
দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম চামড়ার বাজার নাটোরের চকবৈদ্যনাথ। এখানকার দুই শতাধিক আড়ত থেকে শুধুমাত্র কোরবানী ঈদের সময়েই দেশের মোট চামড়ার ৩০ থেকে ৩৫ ভাগ চামড়া ঢাকার ট্যানারীগুলোতে পাঠানো হয়। ইতিমধ্যে জেলার সকল চামড়া চলে এসেছে আড়তগুলোতে। চলছে চামড়া সংরক্ষণের প্রক্রিয়া। চামড়া ব্যবসায়ী নেতারা বলছেন সপ্তাহখানেকের মধ্যে আশেপাশের জেলা গুলোর চামড়া এখানে আসতে শুরু করবে । যেমন পাবনা , বগুড়া , নওগাঁ সহ আশেপাশের জেলার চামড়া আমদানি শুরু হবে। গরুর চামড়া ৪শত টাকা থেকে শুরু করে ভালো সর্বোচ্চ ৮শত টাকা করে কিনছে আড়ৎদাররা । আর খাঁসির চামড়া ১শত থেকে ৩শত টাকা পর্যন্ত । বকরীর চামড়া ৫ টাকা থেকে শুরু করে ১০০টাকা পর্যন্ত ।

এদিকে কোরবানী ঈদের দিন থেকেই নাটোরের চকবৈদ্যনাথ । চামড়ার দাম না থাকায় বাজারে খাসি-বকরী চামড়া কিনছে না কোন আড়ৎদার তাই পঁচে যাচ্ছে এসব চামড়া। পঁচা চামড়া বস্তা বন্ধী করে ফেলে দিচ্ছে তারা। এখানকার আড়ৎ গুলোতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক বেধে দেয়া চামড়া কেনাবেচা হচ্ছে বলে জানান আড়ৎদার নেতারা কিন্তু বাজার ঘুরে দেখা যাচ্ছে খাঁসি ও বকরির চামড়া কিনছে না কোন আড়ৎ । তাই বস্তায় ভরে রাস্তার পাশে ফেলে দিচ্ছে সেগুলো। ইতিমধ্যে গরু , খাসি , মহিষ সহ ভালো চামড়া গুলো প্রক্রিয়াজাত শুরু করছেন আড়তদাররা। সেই সাথে ঢাকার ট্যানারীগুলোতে চামড়া সরবরাহ শুরু হবে।

নাটোর চামড়া শ্রমিকরা বলেন , চামড়া আড়ৎতে যারা কাজ করে তা বছরের এই দিনটির দিকেই তাকিয়ে থাকে। এই সময় তারা শ্রম দিয়ে যে টাকা আয় করে তা দিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে খায় ও সংসার চালায়। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে আড়ৎতে কাজ কম থাকায় তারা দুঃচিন্তা আছে।

আড়তদাররা বলছেন, প্রশাসনের নজরদারীর মধ্যে নির্ধারিত মুল্যে চামড়া কেনাবেচা হয়েছে একানকার আড়তে। নগদ মুল্যে চামড়া বিক্রি ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিন্ধান্ত মোতাবেক কাঁচা ও ওয়েট ব্লু চামড়া রপ্তানী শুরু হলে তারা আরও লাভবান হবেন।

নাটোর জেলা চামড়া ব্যাবসায়ী গ্রুপের সভাপতি শরিফুল ইসলাম শরিফ বলেন, স্থানীয় বাজারে চামড়ার কোন দরপতন হয়নি। ঢাকার ট্যানারী মালিকদের কাছে ৭০ কোটি ঢাকা বকেয়া পড়ে আছে। এই টাকা প্রাপ্তিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে। তবে
এবার ১৫ লাখ পশুর চামড়া চকবৈদ্যনাথ বাজারে কেনা-বেচা হবে বলে আশা প্রকাশ করছেন ব্যবসায়ী নেতারা। যার বাজার মুল্য প্রায় ৫০০ কোটি টাকা।

মোঃ রাশেদুল ইসলাম
নাটোর
০৪-০৮-২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *