নাটোরের বড়াইগ্রামে করোনার মধ্যেই চলছে কোচিং বাণিজ্য

নাটোর প্রতিনিধি:
সারাদেশে করোনাকালীন সময় যখন চলছে মহামারী, স্কুল কলেজ সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্বাস্থ্যবিধির কথা মাথায় রেখে যখন বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার ঠিক তখন নাটোরের বড়াইগ্রামে চলছে অবৈধ কোচিং বাণিজ্য।
উপজেলার বড়াইগ্রাম ইউনিয়নের রামেশ্বরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজি বিষয়ের শিক্ষক আবু সাঈদ তার নিজ গৃহে দীর্ঘদিন যাবৎ কয়েক ব্যাচে অর্ধশতাধিক ছাত্র-ছাত্রী নিয়ে সামাজিক দুরত্ব বজায় না রেখে গাদাগাদি করে এ কোচিং বাণিজ্য চালিয়ে আসছে। করোনা কালীন সময়ে সরকারি নিষেধাজ্ঞাকে তোয়াক্কা না করেই তিনি চালাচ্ছে এ কোচিং বাণিজ্য।
আজ বৃহস্পতিবার সকাল দশটার দিকে আবু সাঈদের বাড়িতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, একটি কক্ষে একসঙ্গে ১২ জন অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে ইংরেজি পাঠদান করছে। এসময় শিক্ষার্থীরা জানায় প্রতি মাসে ৫০০ টাকা বেতনে তারা এই কোচিং গ্রহণ করছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই এলাকার নবম শ্রেণীর জনৈক ছাত্র জানান, গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে অদ্যবধি আবু সাঈদ স্যার নিয়মিত নিজ বাড়িতে কোচিং করাচ্ছেন। অষ্টম, নবম ও দশম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদেরকে তিনি কোচিং করান।
এ বিষয়ে রামেশ্বরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক আবু সাঈদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন- আমি আমাদের বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সারোয়ার হোসেন পিঞ্জুর কাছে অনুমতি নিয়েই এই কোচিং চালাচ্ছি।

রামেশ্বরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সারোয়ার হোসেন পিঞ্জুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি ন‌ই।
ইউএনও আনোয়ার পারভেজ বলেন, কোন নিয়মের মধ্যেই কোচিং চালুর কথা নয়। সরকারের পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা রয়েছে কোচিং চালানোর ক্ষেত্রে। যদি এই অবৈধ কাজ কেউ করে থাকে তবে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মোঃ রাশেদুল ইসলাম
নাটোর
১৮-০৬-২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *