পাবনার কাশিনাথপুর ইউনিয়নের প্রবেশপথ ব্রীজের করুন অবস্হা

দৈনিক পাবনা
পাবনাঃ- পাবনা জেলার সাঁথিয়া উপজেলার কাশীনাথপুর ইউনিয়নের চণ্ডিপুর -বিরাহিমপুর ব্রীজটি ঝুঁকিপূর্ণ সত্বেও দূর্ঘটনার আশঙ্কা মাথায় নিয়েই ভাঙা ব্রীজের উপর দিয়ে চলছে নিত্যপ্রয়োজনীয় মালবাহী গাড়ি ও পথচারী।
গোপালপুর,চণ্ডিপুর,মেহেদীনগর,কাবারীকোলা,
কলাগাছি,ক্ষুদ্র গোপালপুর চরকাবারীকোলা,লালিপাড়া,চড়পাড়া গ্রাম সহ ৯ /১০ টি গ্রামের জনসাধারণের প্রবেশপথ বিরাহিমপুর হওয়ায় অত্যান্ত গুরত্বপুর্ণ এই ব্রীজ।
এর উপর দিয়ে মোটরবাইক, বাইসাইকেল, অটোরিক্সা,ছোট ট্রাক,কাভার ভ্যান,মাইক্রো, প্রাইভেটকার,নছিমন, করিমন, ইজিবাইক,ভটভটি,ভ্যানরিক্সা সহ স্থানীয় শতশত কর্মজীবী মানুষ ও স্কুল,কলেজ,ইউনিভারসিটি পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীসহ প্রাইভেট কোসিংএর শিক্ষার্থীরা চলাচল করছে। এতে প্রায়ই ছোটখাটো দূর্ঘটনার শিকার হতেহচ্ছে এলাকাবাসীর।বিশেষ করে রাতের অন্ধাকারে চলাচলের সময় দূর্ঘটনার শিকার অনেকেই।
ব্রীজটি ১৯৮৪-৮৫ সালে নির্মান করেন। এটি আত্রাই নদীর উপর প্রায় ৬০ ফিট দৈর্ঘ্য কিন্তু প্রস্ত খুবই সরু হওয়ায় (ছোট পরিবহণ চলাচল যোগ্য)এই ব্রীজের উপর দিয়ে বড় কোনো গাড়ি যাতায়াত করতে না পাড়ায় এলাকার উন্নয়ন কর্মে বিঘ্ন ঘটছে।
এই ব্রীজটি এলাকাবাসীর প্রতিনিয়ত হাট-বাজার, অফিস-আদালত, স্কুল, কলেজ,ইউনিভারসিটিসহ দেশ-বিদেশে যাতায়াতের একমাত্র প্রবেশ পথ।
এলাকাবাসীর অভিযোগ ব্রীজটিতে যে কোনো মুহূর্তেই ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।ব্রীজটি জীর্ণশীর্ণ অবস্হায় ঝুঁকির মধ্যেই সকল শ্রেণীর জনগন, স্কুল,মাদ্রাসার কচিকাঁচা বাচ্চাসহ দৈনন্দিন কাজের জন্য বিরাহিমপুর দিয়ে যাতায়াত করতে হয়।ব্রীজটি নতুন করে নির্মান না করলে যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।
এ ব্যাপারে স্হানীয় পল্লী চিকিৎসক মোঃ শাহজাহান আলী, পোল্ট্রি খামার ব্যাবসায়ী মোঃ রফিকুল ইসলাম ও পোল্ট্রি খামারি সৌরভ হোসেন জানান দীর্ঘ দিন ধরেই ব্রীজের পার্শ রেলিং ভেঙ্গে রয়েছে ইদানিং মাঝখানে ভেঙ্গে বড় আকারে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে এবং ব্রীজটি খুব সরু হওয়ায় এলাকায় উন্নয়ন মুলক কাজ যেমন ঘরবাড়ি, স্কুল কলেজ,মাদ্রাসা, মসজিদ,মৎস্য খামার পোল্ট্রি খামার তৈরি ও মেরামতের জন্য প্রোয়োজনীয় সামগ্রী নিয়ে বড় কোনো গাড়ি না ঢুকতে পারায় এবং ব্রীজটি সরু ও জীর্ণশীর্ণ দশার কারনে বিকল্প ছোট গাড়িতে করে রড,সিমেন্ট, বালি, ইট, সার্টারসহ নির্মান সামগ্রী বাড়েবাড়ে আনা নেওয়ায় সময় যেমন বেশি লাগছে তেমনি গুনতে হচ্ছে বাড়তি অর্থ।

সম্প্রতি ব্রিজের নানান অংশে ফাটল ও ভাঙন দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে ব্রিজের উপরের কিছূ অংশে ঢালাই ধ্বসে পড়েছে। এ অবস্থায়ই ঝুঁকি নিয়েই চলছে যানবাহন, জনসাধারন।
এলাকাবাসীর মালামাল পরিবহনের জন্য ব্রিজটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়েই চলছে সবাই। প্রায়ই ঘটছে ছোটখাটো দুর্ঘটনা। আশঙ্কা রয়েছে বড় ধরনের দুর্ঘটনারও।এ জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দের হস্তক্ষেপ কামনা করেন এলাকাবাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *