পিডিসি হাসপাতাল ও মালিকের বাড়ি লকডাউন

দৈনিক পাবনা

শালগাড়িয়াস্থ পিডিসি হাসপাতাল
পাবনা শহরের হাসপাতাল রোডের পিডিসি হাসপাতা ও হাসপাতালটির মালিলক শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ক্যাপ্টেন (সাবেক) ডা. আনিসুর রহমানের বসত বাড়ি ও তার প্রতিষ্ঠান লকডাউন করেছে পৌরসভা ও উপজেলা প্রশাসন। বৃহস্পতিবার দিনভর এলাকাবাসীর বিক্ষোভের মুখে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশে ওই প্রতিষ্ঠান ও বাড়ি লকডাউন করা হয়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, চার পাঁচদিন ধরে ওই মহল্লায় খবর ছড়িয়ে পড়ে, ডা. আনিসুর রহমান করোনা পজিটিভ। কিন্তু পজিটিভ রেজাল্ট আসার আগে এবং পরেও তিনি নিজ বাড়িতে চেম্বারে নিয়মিত রোগী দেখেছেন।

এই খবরের পরে স্থানীয়রা ওই ক্লিনিক এবং চেম্বার বন্ধের জন্য বিক্ষোভ করে। পরে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসন ও পৌরসভা তার বাড়ি ও তার মালিকানাধীন পিডিসি হাসপাতালটি লকডাউন করে লাল পতাকা টানিয়ে দিয়ে যায়।

তবে অবিযোগ রয়েছে, প্রতিষ্ঠানটির সামনে অবস্থান নিলে দেখা যায়, গেটে থাকা কর্তব্যরত সিকিউরিট গার্ড বাড়ির মূল ফটক খুলে ভেতর থেকে মানুষ বাইরে বের করছেন আবার ভেতরে প্রবেশ করাচ্ছেন।

লকডাউন বিষয়ে গেট সিকিউরিটি বলেন, গতকাল বিকেল থেকে প্রতিষ্ঠান আর বাড়ি লকডাউন হয়েছে। আমার তখন ডিউটি ছিল না। সকালে এসে দায়িত্ব পালন করছি। বর্তমানে তিনজন রোগী ভর্তি আছেন। তারা সকালে চলে যাচ্ছেন নিজেদের বাড়িতে। আর রাতে ক্লিনিকে রোগীর সেবার দায়িত্বে যারা ছিলেন তারা সকালে চলে গেছেন। আগামী শনিবার (২৭ জুন) পর্যন্ত পিডিসি হাসপাতাল বন্ধ থাকবে বলে জানান তিনি।

করোনা পজিটিভ জানার পরেও চেম্বারে রোগীর ব্যবস্থাপত্র দেওয়ার বিষয়ে ডা. আনিসুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, চলতি মাসের ২০ তারিখ (শনিবার) আমিসহ আমার স্ত্রী ও অফিস সহকারী তিনজনের করোনা পরীক্ষা করতে দেওয়া হয়। মঙ্গলবার (২৩ জুন) রাতে সিভিল সার্জন ফোনে আমাকে জানান, তিনজনের মধ্যে আমার করোনা পজিটিভ এসেছে। আমার কোনো শারীরিক সমস্যা নেই। আমি এই পরীক্ষার আগ থেকে রোগী দেখা বন্ধ করেছি।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়নাল আবেদিনের বলেন, প্রশাসন এবং পৌরসভা যৌথভাবে ওই বাড়িতে গিয়ে লাল পতাকা টানিয়ে লকডাউন করেছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নজরদারী করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

পাবনা সিভিল সার্জন ডা. মেহেদী ইকবাল জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে আমরা জানতে পারি, তিনি করোনা পজিটিভ হয়েও রোগী দেখছেন। বৃহস্পতিবার ওই বাড়ি ও প্রতিষ্ঠান লকডাউন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ।
করোনা পজিটিভ হয়েও রোগী দেখার বিষয়ে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি, তদন্ত চলছে। সত্যতা পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *