পাবনার গর্ব বাংলার মিস্টার বিন !

নিজস্ব প্রতিনিধি : পাবনার পুরাকীর্তি তাড়াশ ভবন। প্রাচিন এই জমিদার বাড়ির আঙ্গিনায় নানা ফুলের গাছ। এর মাঝে অদ্ভুত পোশাক আর অঙ্গভঙ্গিতে হেটে চলেছেন এক যুবক। হাতে তার একটি পুতুল। যেন স্বয়ং মিস্টার বিন ঘুরছেন সেখানে। তাকে দেখেই ছুটে আসছেন মানুষ। তার সাথে সেলফি তুলে স্মৃতি ধরে রাখছেন মুঠোফোনে। তাদের আবদার মিটাতে দেখাচ্ছেন যাদুও। বর্তমানে সামাজিক মাধ্যামে তিনি পরিচিতি পেয়েছেন বাংলার মিস্টার বিন নামে।

ব্রিটিশ অভিনেতা রোয়ান এটকিনসন বিশ্বব্যাপী পরিচিত তার জনপ্রিয় কমেডি চরিত্র মিস্টার বিনের জন্য। তাকে চেনেন না মানুষ হয়ত খুঁজে পাওয়া কঠিন। ছোট-বড় সবার প্রিয় তিনি। মুখে কোনো কথা নেই, কেবল অঙ্গভঙ্গি আর অভিব্যক্তি দিয়ে যে কাউকে হাসতে বাধ্য করেন তিনি! সেই মিস্টার বিনকে দেখা গেলো পাবনা জমিদার বাড়ি তাড়াস ভবনে। অবাক হলেও সত্যি যে বাংলাদেশের নানা প্রান্তে স্যুট-বুট সঙ্গে পুতুল, হাতে দেখা যাচ্ছে মিস্টার বিনের মতো এক চরিত্রের। নাম তার রাসেদ শিকদার। তিনি মূলত একজন জাদুশিল্পী।

 

রাশেদ শিকদারের জন্ম ১৯৯৮ সালের ৫ অক্টোবর পাবনা জেলার বেড়া উপজেলার খানপুরা গ্রামে। বাবা মো. আব্দুল মান্নান শিকদার ও মা মোছা. আসমা বেগম। তিনি ২০০৮ সালে পাইকান্দী খানপুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক, ২০১৪ সালে পাবনার আমিনপুর কাজিরহাট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও ২০১৮ সালে নাটরের দিঘাপতিয়া এম কে কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন। বর্তমান তিনি পাবনার সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের বিএসএস ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী।

তার জাদুর হাতেখড়ি হয় ২০১০ সালে জাদুশিল্পী প্রিন্স আকাশের হাত ধরে। তারপর তিনি অনেকের কাছ থেকেই জাদু শিখেছেন। এরপর তিনি ২০১৭ সাল থেকে বাংলাদেশ টেলিভিশনে (বিটিভি) জাদু বিষয়ক ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘চোখের পলকে’ নিয়মিতভাবে জাদু দেখান।
রাশেদ শিকদাদের সাথে কথা বলে জানা যায় মিস্টার বিন হয়ে ওঠার গল্প। চেহারায় মিল থাকায় অপর এক জাদুশিল্পী তাকে মিস্টার বিনের চরিত্র অনুকরণের পরামর্শ দেন। সেই থেকে রাশেদ হয়ে ওঠেন বাংলার মিস্টার বিন। ইতোমধ্যে ইউটিউবে সহ সামাজিক মাধ্যমে সাড়া ফেলেছে বাংলার মিস্টার বিনের বিভিন্ন ভিডিও। মানুষের ব্যাপক সাড়াও পাচ্ছেন তিনি। পথে ঘাটে যে কেউ তাকে দেখলেই ছুটে আসেন সেলফি তুলতে।

রাশেদ শিকদার জানান, বাংলাদেশে এম রহমান নামে একজন ম্যাজিশিয়ান আছেন। তিনি আমাকে একদিন বললেন ”রাশেদ! তুমি তো জাদুশিল্পী। কিন্তু তোমার চেহারার সাথে মি. বিনের চেহারার মিল আছে। তুমি যদি চেষ্টা করো, তাহলে বাংলার মি. বিন হতে পারবে।” এরপর আমি ভাবলাম এটাকে কাজে লাগানো যায়। তবে এটাকে অনুকরণ বলবো না। তার প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই আমি তাকে অনুসরণ করছি বছর খানেক হলো।’

রাশেদ চান সাধারণভাবে জীবনযাপন করতে। এ ছাড়াও সমাজের নানাবিধ কল্যাণকর কাজ করে যেতে চান তিনি। তার ইচ্ছা সামাজিক মাধ্যমে সুস্থ ধারার বিনোদন দিয়ে সফল হওয়া। ভালো নির্মাতার অধীনে কমেডি চরিত্রে সুযোগ পেলে অভিনয়ের ইচ্ছা আছে বাংলার মিস্টার বিন রাশেদের। বি.দ্র. করোনা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হওয়ায় এখন বিভিন্ন স্থানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন হচ্ছে। এসব অনুষ্ঠানে যাদু দেখানোর জন্য আমন্ত্রন জানাতে পারেন বাংলার মিস্টার বিনকে। যেহেতু সে পাবনার ছাওয়াল। তাই ,তাক অ্যাইগি লিবার দায়িত্ব কইল আমারেই।
বাংলার মিস্টার বিন এর ভিডিও লিংক : https://youtu.be/dpwEYpK2aKU

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *